চুলের যত্নে চুল বুঝে ব্রাশ ব্যবহার করুন- জেনে নিন টিপস গুলো।

চুল পড়ার অন্যতম কারণ ভুল চিরুনি বা হেয়ারব্রাশ ব্যবহার করা। এই একই কারণে চুল দুর্বল হয়ে সহজেই ভেঙে যায়। নানারকম তেল বা হেয়ার মাস্ক ব্যবহার করলেও ভুল চিরুনির ব্যবহার চুলের মারাত্মক ক্ষতি করতে পারে। তাই, চুলের ধরন অনুযায়ী বাছুন হেয়ারব্রাশ। জেনে নিন, কোন্ চুলের জন্য কেমন ব্রাশ বা চিরুনি ব্যবহার করা উচিত-

চৌকো ব্রাশ

স্ট্রেট চুলের জন্য এই ব্রাশ আদর্শ। চুলে কোনওরকম জট পড়ে থাকলে তা সহজেই ছাড়ানো যায়। ব্রাশের পিছনের অংশটি চৌকো হওয়ায়, অনেকটা চুল একসঙ্গে আঁচড়ানো যায়। ঘন চুল আঁচড়াতেও ব্যবহার করা যায় এই ব্রাশ। চৌকো ব্রাস দিয়ে লম্বা চুল আঁচড়ানোর কাজটাও অনেক সহজ হয়।

মোটা দাঁড়ার চিরুনি

আপনার চুল যদি কোঁকড়ানো হয়, তবে কোনওভাবেই ব্রাশ ব্যবহার করা যাবে না। কোঁকড়ানো চুল অন্য সবধরনের চুলের থেকে আলাদা হয়। ব্রাশ ব্যবহার করলে তা ভেঙে যাওয়ার প্রবণতা বাড়ে। তাই, ব্রাশের বদলে বেছে নিন মোটা ও ফাঁকা দাঁড়ার চিরুনি। চুলের কোঁকড়ানোভাব নষ্ট না করেই এই চিরুনি জট ছাড়ায়। মোটা দাঁড়ার চিরুনি দিয়ে ভিজে চুলও আঁচড়ানো যায়।

ডিম্বাকৃতি ব্রাশ

পাতলা ও সরু চুলের জন্য ডিম্বাকৃতি ব্রাশ ব্যবহার করুন। এই ধরনের চুল খুব যত্নসহকারে আঁচড়াতে হয়। ডিম্বাকৃতি ব্রাশের পিছনে থাকা নরম রাবারের মতো অংশ চুলকে অবলম্বন জোগায়, যার ফলে চুল আঁচড়ানোর যায় অনেক সহজে। চুল পড়া বা ফেটে যাওয়াও অনেক কম হয়।

ধাতব গোল ব্রাশ

সাধারণত, পার্লারে ব্যবহৃত হয় এই ধরনের ব্রাশ। চুলের ভলিউম বাড়িয়ে তা আরও বাউন্সি করে তুলতে এই ব্রাশ ব্যবহার করা হয়। তাছাড়া, স্ট্রেট চুলে স্টাইলিংয়ের জন্যও ব্যবহার হয়। অনেক সময় স্ট্রেট চুল কার্ল করতে কাজে লাগে এই ব্রাশ।

প্যাঁচানো দাঁড়ার ব্রাশ

এই ব্রাশ ব্যবহার করা হয় নকল চুল আঁচড়ানোর জন্য। ব্রাশের মাথাটা প্যাঁচোনো থাকায় নকল চুলের মধ্যে দিয়ে তা সহজেই গলে যায়। চুল এলোমেলো হয়ে যায় না। যদি কারও মাথার ত্বক খুব স্পর্শকাতর হয়, তবে এই ব্রাশ দিয়ে চুল আঁচড়াতে পারেন।

Leave a Reply