এসিডদগ্ধ নারীরা,নারী,জাঁকজমকপূর্ণ ফ্যাশন শো,পুত্র সন্তানের,স্বামী,নারী,নারীদের ,
এসিডদগ্ধ নারীরা,নারী,জাঁকজমকপূর্ণ ফ্যাশন শো,পুত্র সন্তানের,স্বামী,নারী,নারীদের ,

ফ্যাশন শোতে চমক দেখালেন এই এসিডদগ্ধ নারীরা

গত শনিবার ভারতের নয়া দিল্লির ললিত হোটেলে অনুষ্ঠিত হয়ে গেল এসিডদগ্ধ নারীদের এক জাঁকজমকপূর্ণ ফ্যাশন শো। ভারতের খ্যাতিমান সব ফ্যাশন ডিজাইনার এবং রূপ বিশেষজ্ঞদের সাহায্যে অসাধারণ সব গ্ল্যামারাস সাজ পোশাকে অংশ নেন নয়জনএসিডদগ্ধ নারী।

এই নয় জনের মধ্যে রয়েছেন এক পুত্র সন্তানের মা মিনা খাতুন। যাকে এসিড ছুঁড়ে মেরেছিলেন তার স্বামী। সংবাদ মাধ্যম এএফপিকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে খাতুন বলেন, ‘মানুষ আমাকে দেখলেই মুখ ফিরিয়ে নেয়। এমনকি রাস্তায় বের হলে অনেকেই আমাকে দেখা মাত্র উল্টো দিকে হাঁটতে শুরু করে। তবে এখন আমি সব ভয়ভীতি এড়িয়ে নিজের একটি ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান চালু করেছি। ছেলেটাকে একটা ভালো স্কুলে ভর্তি করিয়েছি।’

নয়া দিল্লির ঐ এসিডদগ্ধ নারীদের ফ্যাশন শোটির আয়োজন করে ‘মেইক লাভ নট স্কেয়ার’ নামের একটি এনজিও। এই এনজিওটি বহুদিন ধরে ভারতের এসিডদগ্ধ নারীদের সাহায্য করে আসছে। পিছিয়ে থাকা এসিডদগ্ধ নারীদের মনে সাহস জোগানোও এই এনজিওটির আরেকটি উল্লেখযোগ্য কাজ।


কবিরাজ: তপন দেব ।

নারী-পুরুষের সকল জটিল ও গোপন রোগের চিকিৎসা করা হয়। দেশে ও বিদেশে ওষধ পাঠানো হয়।

আপনার চিকিৎসার জন্য আজই যোগাযোগ করুন – ০১৮২১৮৭০১৭০ (সময় সকাল ৯ – রাত ১১ )


যদিও প্রথম দিকে ফ্যাশন শোটিতে অংশ নিতে ভয় পেয়েছিলেন এসিডদগ্ধ নারীরা। পরবর্তীতে ৯ জন নারী আগ্রহ প্রকাশ করায় বেশ ধুমাধাম করেই অনুষ্ঠিত হয়েছে অনুষ্ঠানটি। ‘মেইক লাভ নট স্কেয়ার’এনজিওটিতে প্রায় হাজারেরও বেশি এসিডদগ্ধ নারী সদস্য রয়েছেন। আজস্র প্রতিকূলতা পাড়ি দেওয়া নারীদের কাছ থেকে জানা যায় তারা প্রত্যেকেই তাদের স্বামী কিংবা আত্মীয় অথবা খুব কাছের মানুষের দ্বারা এসিডদগ্ধ হয়েছেন।

 

দিল্লির ঐ ফ্যাশন শোতে অংশ নেওয়া ২০ বছর বয়সী রেশমা কুরেশি গত বছর নিউ ইয়র্ক শহরের এসিডদগ্ধ নারীদের ফ্যাশন শোতেও অংশ নিয়েছিলেন। তিনি একটি বইও লিখছেন। আগামী বছরেই তার সেই বইয়ের মোড়ক উন্মোচন হবে বলে জানান তিনি ।

Leave a Reply